খাদ্য প্রস্তুতির জন্য নির্ধারিত প্রক্রিয়া – Diet chart for weight loss for female in Bangla

খাদ্য প্রস্তুতির জন্য নির্ধারিত প্রক্রিয়া

 

আমাদের দেশে রান্নায় প্র্রচুর পরিমাণে ঘি/তেল দেওয়া হয়ে থাকে, যা হৃদরোগীদের পক্ষে বিপজ্জনক হয়। আমরা নিম্নলিখিত প্রক্রিয়ায়র মাধ্যমে খাদ্য তৈরী করার পরামর্শ দিইঃ

(ক) ঝলসানোঃ ঝলাসানো বা বেক করা একই ব্যাপার। এই কাজ ওভেন একশত বিশ ডিগ্রী থেকে  দুইশত ষাট ডিগ্রী তাপমাত্রার মধ্যে রেখে করা হয়ে থাকে।  সাধারণত পাপড় ঝলসানো  হয় এবং পাউরুটি, কেক বা বিস্কুটের জন্য বেকিং করা হয়ে থাকে।  খাদ্যকে শুকনো এবং সিক্তে আঁচে রান্না করা হয়। সিক্ত খাবার বানানোর জন্য প্রথমে তাপমাত্রা সিক্ত হওয়া প্রয়োজন, যাতে ঠান্ডা পদার্থ অনুকুল তাপমাত্রায় আসতে পারে। ওভেনে বিভিন্ন প্রক্রিয়ায় তাপের মাধ্যমে ঝলসানো বা পরিপাক করা হয়ে থাকে। কনভেনশান তরঙ্গ ওভেনের তাপমাত্রাকে একই আকারে রাখে।  এই প্রক্রিয়ায় একদমই তেলের প্রোয়জন হয় না এবং খাদ্যও সুস্বাদু হয়।

(খ) সেদ্ধঃ  সেদ্ধ করার অর্থ হল জল  দিয়ে রান্না করা।  এই প্রক্রিয়ার মাধ্যমে জল তাপে পরিবর্তিত হয়ে যায়।  এই প্রক্রিয়াতে জল,  যে বাসনে রান্না করা হয় তার থেকে তাপ গ্রহণ করে থাকে। তাপ বেশী হয়ে গেলে খাদ্য ফুটতে শুরু করে।  জল তাপের কুপরিবাহি হয়, তাই সেদ্ধ করার জন্য বেশী লাগে। জলের স্ফুটনাঙ্ক একশ ডিগ্রী হয়।  বেশী তাপে এর স্বরুপ পরিবর্তিত হতে থাকে।

(গ) ভ্যাপে খাদ্য প্রস্তুতঃ ভাপের সাহায্যেও খাদ্য প্রস্তুত করা হয়ে থাকে।  একে প্রেশার কুকিং বলা হয়।  এই প্রক্রিয়ায় রান্না করার জন্য সিক্ত তাপমাত্রার প্রয়োজন হয়।  এতে খাদ্য প্রস্তুত করার জন্য সামান্য জলের  প্রয়োজন পড়ে।  এই জল থেকেই বাষ্পের সৃষ্টি হয়। প্রেশার-কুকারের মাধ্যমে অনেক কম সময়ে খাদ্য তৈরী হয়ে থাকে।  ভাপে খাদ্য পদার্থ ততক্ষন সেদ্ধ হয়, যতক্ষন না পদার্থের তাপমাত্রাও ভাপের তাপমাত্রা পর্যন্ত পৌছাচ্ছে।