স্থূলতা কি ?

স্থূলতা কি ?

প্রশ্নঃ স্থূলতা বলতে কি বোঝায় ?

উত্তরঃ যদি শরীর মধ্যস্থ ফ্যাটের পরিমাণ পুরুষদের মোট ওজনের থেকে পনেরো ভাগ বেশী এবং স্ত্রীদের শরীরের  মোট ওজনের থেকে পনেরো  ভাগ বেশী  হয়ে যায়, তখন তাকে স্থূলতা বলে। যদি শরীর  যতটা শক্তি পায়, তা সম্পূর্ণ খরচ না হয়.. তবে তা শরীরের বিভিন্ন স্থানে সঞ্চিত হতে থাকে নিজেদের নিয়ন্ত্রণ করতে  পারেন না, তাদের পক্ষে স্থূলতা কমানো খুবই কষ্টকর । এই বিপজ্জনক অসুখটির দ্বারা  আজ সারা পৃথিবীতে অনেক লোকই আক্রান্ত।

প্রশ্নঃ স্থূলাতা কত প্রকার হয় ?

উত্তরঃ স্থূলতা দু প্রকার হয়।  প্রাথমিক স্থূলতায় খাবার এবং ব্যায়াম স্থূলতার কারণ হয়ে দাড়াতে পারে।  এটিকে আপনি সহজেই ঠিক করতে পারেন। কিন্তু দ্বিতীয় প্রকার স্থূলতার পেছনে কোন সঠিক কারণ নেই।  এই ধরণের  অসুবিধা হাইপোথায়রোডিজম এবং কশিং সিন্ড্রোম এর  কারণে হতে পারে।  অধিক পরিমাণে  ষ্টেরয়েড গ্রহণ করলেও সেটা স্থূলাতয় পরিবর্তিত হয়।  গর্ভবর্তী মহিলারাও মোটা হয়ে যায়, কিন্তু তাদের স্থূলতা এই শ্রেণীতে পড়ে না.. কারণ তাদের শরীরের ওজনের সাথে তাদের গর্ভস্থ বাচ্চার ওজনও অন্তর্ভক্ত থাকে।

প্রশ্নঃ কোন ধরণের স্থূলতাকে আপেল এবং নাশপাতির মত স্থূলতা বলে ?

উত্তরঃ  স্থূলাতার কারণ শরীরের বিভিন্ন অঙ্গে ফ্যাট সঞ্চিত, যার ফলে দুই ধরণের স্থূলতা দেখা যায় একটিকে আপেল বা ‍android স্থূলতা বলা হয়.. যার ফলে শরীরের ওপরের অংশে ফ্যাট সঞ্চিত হয়। এটা বেশীর ভাগ পুরুষের ক্ষেত্রে দেখা যায়। অপরটিকে নাশপাতি বা স্থূলতা বলা হয়ে থাকে।  এতে শরীরের নীচে অংশ নিতম্ব, ঊরু এবং কোমরে ফ্যাট সঞ্চিত হয়।  এটা বেশীর ভাগ মহিলার ক্ষেত্রে দেখা যায়।

শরীরের ওপরের ভাগ এবং নীচের ভাগ অবস্থিত কোষগুলির কার্য প্রণালী আলাদা-আলাদা হয়।  android স্থূলতার কারণে হাইপার টেনশন, হৃদরোগ, হাইপার ইনসুলিনেমিয়া, ডায়াবেটিজ মেলাইটাস, গল ব্লাডার প্রভৃতি রোগ দেখা যায় এবং ফলে পক্ষাঘাতও দেখা যেতে পারে।  হাইপার ট্রোফিতে  অবস্থিত কোষের আকার বৃদ্ধি পায় এবং হাইপার প্লাসিয়াতে অবস্থিত কোষের আকার বৃদ্ধি পায়। কোষের আকারকে ছোট করা যায়, কিন্তু সেগুলোর সংখ্যা কমানো খুবই কষ্টকর।

প্রশ্নঃ শৈশবকালীন স্থূলতা কি ?

উত্তরঃ বাচ্চা এবং কিশোরদের মধ্যেও স্থূলতা দেখা যায়।  ছয় থেকে এগার বছর বয়সী বালকদের মধ্যে বার থেকে সতেরো বছর বয়সী কিশোরদের  মধ্যে স্থূলতা  দেখা যায়।   এর সাথে প্রাপ্তবয়স্কদের স্থূলতাকে যুক্ত করা যায়।  শক্তির সঞ্চয় এবং  তা খরচ .. এই দুটির মধ্যে ভারসাম্য বজায় না থাকলে তবেই স্থূলতা দেখা যায়।  যে সমস্ত বাচ্চারা অপুষ্টিকর খাবার খায়, দিনের বেশ কয়েক ঘন্টা টিভি দেখে কাটায় এবং বেশী শরীর পরিচালনা করে না, তারাই মোটা হয়ে যায়।  বাবা মার ভালোবাসাও  তাদের অতিরিক্ত খাদ্য খেতে বাধ্য করে।

 

প্রশ্নঃ  স্থূলতা এবং অত্যধিক ওজনের মধ্যে পার্থক্য কি?

উত্তরঃ  যদি আদর্শ ওজনের থেকে আপনার ওজন দশ ভাগ বেশী থাকে, তবে তাকে অত্যাধিক ওজন বলা হতে পারে এবং যদি বিশ স্থূলতা বেশী হয়ে পড়ে, তখন তাকে স্থূলতা বলা হয়ে থাকে। এই স্থূলতা গ্রেড এক, গ্রেড –দুই, গ্রেড- তিন এর  হতে পারে।  একে MBI দ্বারা মাপা হয়ে থাকে।

প্রশ্নঃ স্থূলতার কারণে কি-কি অসুখ হতে পারে ?

উত্তরঃ ওজন বৃদ্ধির কারণে যে-যে অসুখ হতে পারে, তাদের  নাম নীচে দেওয়া হল। স্থূলতার বৃদ্ধির সাথে –সাথে এই সব অসুখের  ঝুঁকিও বৃদ্ধি পায়।

  • এ্যাঞ্জাইনা পেক্টোরিস
  • ব্লাডার কন্ট্রোল প্রবলেমস্
  • কোলেসিষ্টাইটিস এবং কোলেনিথাইসিস
  • ক্যানসার
  • গর্ভবস্থায় জটিলতা
  • কনজেষ্টিভ হার্ট ফেলিয়োর
  • করোনারী হার্ট ডিজিজ
  • গলষ্টোন
  • বাত
  • হাই ব্লাড ক্লোষ্টেরল
  • হাই ব্লাড প্রেশার
  • হাইপার ইনসুলিনিয়ামিয়া
  • ইনস্যুলিন রেজিষ্ট্যান্স
  • গ্লুকোজ ইনটলারেন্স
  • অষ্টিয়ো অর্থারাইটিস
  • ঋতুচক্রে সমস্যা এবং বন্ধ্যাত্ব
  • মানসিক গোলযোগ (মানসিক চাপ, অনিয়মিত খাওয়া দাওয়া, শরীরের প্রতি উদাসীনতা, আত্মসম্মানের অভাব প্রভৃতি)
  • ষ্ট্রোক
  • টাইপ- এগার (নন ইনস্যুলিন ডিপেন্ড্যান্ট) ডায়াবেটিজ
  • ইউরিক অ্যাসিড নেফ্লোলিথিয়াসিস।